গাজীপুর ও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে পোশাক শ্রমিকদের অবরোধ

গাজীপুর প্রতিনিধি : একটি পোশাক কারখানার শ্রমিক ও কর্মচারীরা বকেয়া বেতন, হাজিরা ও বোনাসের দাবিতে গাজীপুরে সড়ক অবরোধ করেছেন। বৃহস্পতিবার সকালে সিটি কর্পোরেশনের লক্ষীপুরা এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। জয়দেবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম ঘটনার সত‌্যতা নিশ্চিত করেছেন।

কারখানার শ্রমিক সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার সকালে কারখানার শ্রমিকরা কাজে যোগদান করে। এর কিছুক্ষণ পর শ্রমিকেরা একযোগে বেতনের দাবিতে বিক্ষোভ শুরু করে। এক পর্যায়ে শ্রমিকেরা উত্তেজিত হয়ে জয়দেবপুর ঢাকা সড়ক অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ শুরু করে। বিক্ষোভের এক পর্যায়ে তারা সড়ক অবরোধ করে।

ওই প্রতিষ্ঠানের শ্রমিক লিটন জানান, তাদের আগের বছরের ৩ মাস ও চলতি বছরের ৩ মাসসহ মোট ৬ মাসের বেতন বকেয়া রয়েছে। মালিকপক্ষ তাদের বার বার শুধু আশ্বাস দিচ্ছে অথচ বেতন দিচ্ছে না। শুধু কাজ করাবে অথচ বেতন দিবে না, এটা মেনে নেওয়া হবে না।

আরেক শ্রমিক ছানোয়ার বলেন, ৪ হাজার শ্রমিককে মাঝেমধ্যে কিছু বেতন দেয় আবার হঠাৎ করেই বন্ধ করে দেয়। গত মাসেও ৩টা ডেট দিয়েও শেষ পর্যন্ত বেতন দেয়নি। বেতন না দিলে আমাদের কীভাবে চলবে।

প্রতিষ্ঠানের মালিককে নিজে এখানে আসতে হবে এবং আজ বিকেলের মধ্যে বেতন না দিলে সড়ক এভাবেই অবরুদ্ধ করে রাখা হবে। এ বিষয়ে কারখানার ব্যবস্থাপকের সঙ্গে মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল করলেও তিনি ফোন ধরেননি বলে বক্তব‌্য পাওয়া সম্ভব হয়নি।

এদিকে, নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ের কাঁচপুরে মহাসড়কে বেতন ও বোনাসের দাবিতে বিক্ষোভ করেন এপেক্স অ্যান্ড সিনহা গ্রুপের পোশাক কারখানার শ্রমিকরা। এর ফলে ঢাকা-চট্টগ্রাম ও ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে ১২ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার দিকে মহাসড়ক দুটিতে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করেছেন শ্রমিকরা।

হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনিরুজ্জামান বলেন, সকালে হঠাৎ করে পোশাকশ্রমিকরা বেতন-বোনাসের দাবিতে রাস্তায় অবরোধ শুরু করলে যানজট তৈরি হয়। আমরা চেষ্টা করছি তাদের সরিয়ে যান চলাচল স্বাভাবিক করতে।

দাবি আদায় না হলে সড়ক না ছাড়ার ঘোষণা দেন বিক্ষোভে অংশ নেয়া বেশ কয়েকজন শ্রমিক। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছে। এর ফলে চরম ভোগান্তিতে পড়তে হয়েছে এসব যানে থাকা যাত্রী ও চালকদের।